সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা ও সূরা ইখলাস | দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা



দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনাকে সংক্ষিপ্ততম উপায়ে প্রকাশ করেছে কুরআন, সূরা ইখলাস-এ। “ব্যাকট্র্যাকিং” পর্ব থেকে শুরু করে একটু একটু করে অগ্রসর হয়ে “একাধিক স্রষ্টা” পর্বে এসে “পরম স্রষ্টার” ব্যাপারে আমরা মোটামুটিভাবে পাঁচটি অকাট্য সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিলাম:

১. তিনি অসৃষ্ট। অতএব, তিনি জন্মগ্রহণ করেননি।

২. তিনি সময়ের ঊর্ধ্বে। ইনফিনিটিতে তাঁর বাস। তিনিই ইনফিনিটি।

৩. তাঁর সৃষ্টিক্ষমতা আছে। তিনি শূন্য থেকে সৃষ্টি করতে পারেন।

৪. তিনি মহাবিশ্বের পরম স্রষ্টা: তিনিই সবকিছু সৃষ্টি করেছেন।

৫. তিনি সংখ্যার ঊর্ধ্বে। তিনি একক, অবিভাজ্য।

আর সূরা ইখলাস সে কথাগুলিরই প্রতিধ্বনি করছে। সূরা ইখলাস বলছে যে, তিনি একক (আহাদ)। আরো বলছে যে, তিনি কারো থেকে জন্মগ্রহণ করেননি বা কাউকে জন্মও দেননি (লাম ইয়ালিদ ওয়ালাম ইয়ুলাদ)।

এই দুইটি পয়েন্ট আমাদের দার্শনিক স্রষ্টাভাবনার সিদ্ধান্তের সাথে পুরোপুরি মিলে যায়। এবং বাকি দুটি যে বাক্য, তা-ও আসলে আমাদের সিদ্ধান্তগুলোরই অনুসিদ্ধান্ত: আল্লাহ অমুখাপেক্ষী (আল্লাহুস সামাদ), এবং তাঁর সমতুল্য কোনো কিছুই নেই (ওয়ালাম ইয়াকুল্লাহু কুফুয়ান আহাদ)। তাঁর সমতুল্য থাকবে কিভাবে, তাঁর দ্বিতীয়টা থাকলে না তুলনা করা যাবে! দুইজন মানুষের মাঝে তুলনা হয়, কিন্তু দুইজন পরম স্রষ্টাই তো নাই যে তুলনা করবেন! এ নিয়ে আমরা “একাধিক স্রষ্টা” পর্বে আলোচনা করেছি।

একজন মুক্তমনা দার্শনিক হন সত্যিকার নিরপেক্ষ মানুষ। তিনি কোনো ধর্মের পক্ষেও নাই, বিপক্ষেও নাই। তিনি কেবল দার্শনিক উপায়ে সত্যের সন্ধান করেন; এবং যার সাথে যেখানে যতটুকু সত্য মিলে যায়, ততটুকু গ্রহণ করেন। তেমনি একজন মুক্তমনা দার্শনিক যখন তার “দার্শনিক স্রষ্টাভাবনার” সাথে সূরা ইখলাসের এমন বিস্ময়কর মিল খুঁজে পান, তখন কুরআনের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠাটাই স্বাভাবিক।সেই আগ্রহ আরো বেড়ে যায়, যখন জানা যায় যে কুরআন ১৪০০ বছর আগের একটি গ্রন্থ। শুধু তা-ই নয়, এমন এক মহা দার্শনিক গ্রন্থের জন্য নিজে কোনোই ক্রেডিট দাবী করেননি মুহাম্মদ। বরং কুরআনের ভিতরে বিভিন্ন জায়গায় বলা হয়েছে যে, এটি পরম স্রষ্টার পক্ষ থেকে আসা এক কিতাব; এর মাধ্যমে তিনি (আল্লাহ) মানুষকে বের করে আনেন (নবীর মাধ্যমে) অন্ধকার থেকে আলোর দিকে। তবে এ কেমন নিঃস্বার্থ লেখক, যার বিন্দুমাত্র খ্যাতির মোহ নেই? সুবিশাল এক গ্রন্থ নিজে লিখবে, অথচ তার ক্রেডিট নেবে না, বরং বলবে সেটা পরম স্রষ্টার পক্ষ থেকে আসা বাণী – এটা কি আদৌ সম্ভব? তার মানে কি কুরআন মুহাম্মদের লেখা গ্রন্থ নয়, বরং প্রকৃতপক্ষেই কুরআন আল্লাহর বাণী? একজন মুক্তমনা দার্শনিকের মনে ইত্যাদি নানান প্রশ্ন জাগাটাই স্বাভাবিক।

দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা ও সূরা ইখলাস | দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা


আর এতসব প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে কুরআন হাতে তুলে নেবার বিকল্প নেই। আজ থেকে পাঁচবছর আগে আমি সেভাবেই কুরআন হাতে তুলে নিয়েছিলাম। হ্যাঁ, আমি অস্বীকার করব না, তার আগেও আমি কুরআন পড়েছি। কিন্তু তখন সেটা ছিল আমার কাছে ধর্মগ্রন্থ: যার বিরুদ্ধে প্রশ্ন তোলা যাবে না। তখনও আমি সমাজ-পরিবারের বিপরীতে যাবার সাহস অর্জন করিনি। তখনও সত্যের সন্ধানে নিরপেক্ষ দার্শনিক যাত্রা করিনি। তখন যখন কুরআন পড়তাম, পড়তাম নিজের ধর্মকে জানার জন্য। এবং আরো একটা কারণে কুরআন পড়তাম: আস্তিক-নাস্তিক বিতর্কে নিজের ধর্মকে জিতানোর জন্য। কিন্তু তর্কে জিতে আসলে কী হবে, দিনশেষে আমার নিজের কাছে আমি শূন্য: ইসলামই যে সত্য, তা আমি নিশ্চিত নই। সত্য যে আসলে কোনটা, তা-ই আমি জানি না। আমার নিজের ভিতরেই কোনো দৃঢ়তা নেই।

তারপর একটা সময়ে ব্যক্তিগত কিছু ঘটনায় যখন নিজের ভিতরে প্রবলভাবে আন্দোলিত হলাম, ধাক্কা খেলাম, তখন সত্যের সন্ধানে নিরপেক্ষ দার্শনিক যাত্রা করবার সাহস করে ফেললাম। আর সেই যাত্রার গল্পটাই আপনি এতক্ষণ পড়ছেন, প্রিয় পাঠক!

পাঠক! হয়ত আপনার দার্শনিক যাত্রাটা ভিন্নরকম হবে। হয়ত আমি যেভাবে স্রষ্টাভাবনা করেছি, আপনি সেভাবে করবেন না। হতেই পারে! তবে উৎসের সন্ধান করাটা যে মানুষের জন্মগত বৈশিষ্ট্য, এটা অস্বীকার করার উপায় নেই। অতএব, কোনো মানুষ এই বইটি পড়ুক বা না-ই পড়ুক, কুরআন পড়ুক বা না-ই পড়ুক, সে-ও স্রষ্টাভাবনা করবে। সেও উৎসের সন্ধান করবে। যে মানুষ বই পড়তে জানে না, কোনো ধর্মের ব্রেইনওয়াশিংও নেই, সে-ও তো উৎসের সন্ধান করে!

আবারো বলছি, পাঠক! হয়ত আপনার কিংবা আরেকজন মানুষের দার্শনিক যাত্রাটা ভিন্ন হতে পারে। কিন্তু আমার ব্যক্তিগত দার্শনিক যাত্রার যে গল্প, তাতে কুরআনের একটি অংশ আছে। প্রশ্ন আসতে পারে, কেন কুরআন? কেন অন্য কোনো ধর্মগ্রন্থ নয়? উত্তরে বলতে হয়, কুরআনের বাইরে কমপক্ষে বাইবেল নিয়ে পড়াশুনা লেখকের আছে। কিন্তু যদি দশটা ধর্মগ্রন্থ যাচাইয়ের পর বাইবেলকেই সঠিক বলে পাওয়া যায়, তবে কেবল বাইবেলের আলোচনা অন্তর্ভুক্ত করাই সঙ্গত। নতুবা বই বিশাল আকার ধারণ করবে। একইভাবে তা যদি হয় কুরআন, তবে প্রথমেই “কুরআন যাচাই” এর অংশটুকু তুলে ধরাই কাম্য।

সত্য লুকিয়ে নেই, লুকিয়ে নেই পরম স্রষ্টাও। বরং জীবন-জগতের মহাসত্য জানবার পথে বাধা হলাম আমরা নিজেরাই: আমাদের প্রভাবিত মন। আস্তিক-নাস্তিক বিতর্ক, বিভিন্ন আন্তঃধর্মীয় বিতর্ক, আর সেসব বিতর্কে নিজের দলকে জিতানোর চেষ্টা – এইসব করে করে আমরা নিজেদের মনকে প্রচণ্ড প্রভাবিত করে ফেলেছি। আমরা আস্তিক-নাস্তিক প্রত্যেকেই কতটা যে ব্রেইনওয়াশড, তা অনুভব করার শক্তিও হারিয়ে ফেলেছি অনেকে। চারিদিকে প্রভাবিত মনের মানুষদের ধর্মীয় তর্ক বিতর্কের স্রোতের মাঝে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে নিজের মত করে সত্যের সন্ধানে যাত্রা করাটা সত্যিই কঠিন। সেই কঠিন কাজটি করার জন্য আপনাকে স্বাগতম।

পাঁচ বছর আগে কুরআনের ভিতরে যে দার্শনিক যাত্রা শুরু করেছিলাম, তা আজও চলছে। আমার সেই যাত্রারই কিছু গল্প নিয়ে এই বইয়ের দ্বিতীয় ভাগ: দার্শনিকের কুরআন যাত্রা।

_______________________________

অসৃষ্ট | সময়ের ঊর্ধ্বে | সংখ্যার ঊর্ধ্বে | ইনফিনিটি

সূরা ইখলাস



মন্তব্যসমূহ

সর্বাধিক জনপ্রিয়

স্রষ্টাভাবনা

প্রথম ভাগ: দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা | | পর্ব-১: উৎসের সন্ধানে উৎসের সন্ধান করা মানুষের জন্মগত বৈশিষ্ট্য। মানুষ তার আশেপাশের জিনিসের উৎস জানতে চায়। কোথাও পিঁপড়ার লাইন দেখলে সেই লাইন ধরে এগিয়ে গিয়ে পিঁপড়ার বাসা খুঁজে বের করে। নাকে সুঘ্রাণ ভেসে এলে তার উৎস খোঁজে। অপরিচিত কোনো উদ্ভিদ, প্রাণী কিংবা যেকোনো অচেনা জিনিস দেখলে চিন্তা করে – কোথা থেকে এলো? কোথাও কোনো সুন্দর আর্টওয়ার্ক দেখলে অচেনা শিল্পীর প্রশংসা করে। আকাশের বজ্রপাত, বৃষ্টি, রংধনু কিংবা সাগরতলের অচেনা জগৎ নিয়েও মানুষ চিন্তা করে। এমনকি ছোট শিশু, যে হয়তো কথাই বলতে শেখেনি, সে-ও কোনো শব্দ শুনলে তার উৎসের দিকে মাথা ঘুরায়। অর্থাৎ, মানুষ জন্মগতভাবেই কৌতুহলপ্রবণ।

একটা বাচ্চা জ্ঞান হবার পর চিন্তা করে – আমি কোথা থেকে এলাম? আরো বড় হবার পর চিন্তা করে – আমার মা কোথা থেকে এলো? এমনি করে একসময় ভাবে, পৃথিবীর প্রথম মা ও প্রথম বাবা, অর্থাৎ আদি পিতা-মাতা কিভাবে সৃষ্টি হয়েছিল? চারিদিকের গাছপালা, প্রকৃতি, পশুপাখি, গ্রহ-নক্ষত্র-মহাবিশ্ব – এগুলিরই বা সৃষ্টি হয়েছে কিভাবে? ইত্যাদি নানান প্রশ্ন উৎসুক মনে খেলে যায়।

তখনই শুরু হয় সমস্যা। নিরপেক্ষ মানব মনকে চার…

ব্যাকট্র্যাকিং | দার্শনিকের স্রষ্টাভাবনা

আগের পর্ব: উৎসের সন্ধানে | সূচীপত্র দেখুন


আদি পিতা-মাতাকে কে তৈরী করল? কোন সে পুতুল কারিগর? একজন ভাস্কর যেভাবে পাথর কুঁদে মানুষের মূর্তি তৈরী করেন, কিংবা মাটি দিয়ে তৈরী করেন পুতুল! এই প্রশ্নের উত্তর আমরা পাই ব্যাকট্র্যাকিং পদ্ধতিতে।
মানুষের ব্যাকট্র্যাকিং
আমাকে জন্ম দিয়েছেন (সৃষ্টি করেছেন) আমার মা। আর আমার মা-কে জন্ম দিয়েছেন আমার নানী, কিন্তু তাঁরও তো মা ছিল! আমরা যদি এভাবে পিছনের দিকে যেতে শুরু করি, তাহলে:
আমার মা, তার মা, তার মা… এভাবে করে একদম শুরুতে অবশ্যই এমন এক মা থাকতে হবে, যার আর কোনো মা নাই। সে-ই পৃথিবীর প্রথম মা। এই পদ্ধতিটাকে বলা হয় ব্যাকট্র্যাকিং (backtracking)। অর্থাৎ, কোনোকিছুর পিছনের কারণকে খুঁজে বের করা।
স্রষ্টার ব্যাকট্র্যাকিং
আচ্ছা, সেই আদি মাতার সৃষ্টি হলো কিভাবে? তার নিশ্চয়ই কোনো মাতৃগর্ভে জন্ম হয়নি, কারণ সে-ই তো প্রথম মা, আদি মাতা! অতএব, নিশ্চয়ই কোনো পুতুল কারিগর নিজ হাতে গড়েছিলেন মানবজাতির আদি মাতাকে! তো, সেই আদি মাতাকে যিনি সৃষ্টি করলেন, সেই স্রষ্টাকেই আমরা বলছি “মানুষের স্রষ্টা”।
এখন কেউ জিজ্ঞাসা করতে পারে, “মানুষের স্রষ্টাকে” সৃষ্টি করলো কে? তখন উত্তরে বলতে হয়: আচ্…

কুরআনের দর্শন | দার্শনিকের কুরআন যাত্রা

আগের পর্ব: সূরা ইখলাস ও নিরপেক্ষ মন | সূচীপত্র দেখুন

কুরআনের দর্শন (philosophy) কেমন? আসলে একটি ছোট লেখায় কখনোই গোটা কুরআনের দর্শন পুরোপুরি তুলে ধরা সম্ভব না। কুরআনের যেকোনো ছাত্র একবাক্যে স্বীকার করবে যে, মৃত্যু পর্যন্ত একজন ছাত্রের “কুরআন যাত্রা” শেষ হয় না। তাই “কুরআনের দর্শন” শিরোনামের যেকোনো লেখাই অসম্পূর্ণ। এই লেখাও তার ব্যতিক্রম নয়। তবুও আমাদের আলোচনার সাথে প্রাসঙ্গিক কিছু বিষয়ে কুরআনের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরার চেষ্টা করলাম।

অপরের বক্তব্য শুনতে হবে


فَبَشِّرْ عِبَادِي (١٧) الَّذِينَ يَسْتَمِعُونَ الْقَوْلَ فَيَتَّبِعُونَ أَحْسَنَهُ أُولَئِكَ الَّذِينَ هَدَاهُمُ اللَّهُ وَأُولَئِكَ هُمْ أُولُو الألْبَابِ (١٨)

“অতএব, (হে রাসূল!) সেই বান্দাদের সুসংবাদ দিন যারা বক্তব্য শোনে, অতঃপর তার মধ্য থেকে যা কিছু অধিকতর উত্তম তার অনুসরণ করে। এরাই হচ্ছে তারা যাদেরকে আল্লাহ সঠিক পথ দেখিয়েছেন এবং এরাই হচ্ছে প্রকৃত জ্ঞানবান।” (সূরা যুমার, ৩৯:১৭-১৮)

অর্থাৎ, কুরআনের দর্শন হলো মুক্ত আলোচনার দর্শন। সবার মতামত শুনতে হবে, তারপর সেগুলি যাচাই করতে হবে। যুক্তিবুদ্ধির মানদণ্ডে যেগুলি উত্তম বলে বিবেচিত হবে, সেগ…